1. admin@somoyerahoban.com : somoyerahoban :
শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৬:২৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
ঝিনাইগাতীর হাতিবান্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের ইন্তেকাল আত্রাইয়ে ব্র্যাক পল্লী সমা‌জের সমন্বয় সভা প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার ঝিনাইগাতীতে ব্র্যাকের আইন সহায়তা মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ঝিনাইগাতীতে ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীর মতবিনিময় সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত বিএনপিই এখন স্বীকার করেছে যে অসম্ভবকে সম্ভব করেছে শেখ হাসিনা, মতিয়া চৌধুরী কেশবপুর পৌর নির্বাচনের পরিবেশ অত্যন্ত ভালো, কোন ঝুঁকি নেই- সিইসি নূরুল হুদা কেশবপুরে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন, দুই দিনে ৫ প্রার্থীসহ ১ কর্মীকে জরিমানা কেশবপুরে স্বামীর নির্যাতনে গৃহবধূ আহত কলামিস্ট, গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ আর নেই

করোনায় কমতে পারে পশু কোরবানি, শঙ্কায় খামারিরা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০
  • ৩০ Time View

বরিশাল: দিন যতই সামনে এগোচ্ছে ততই পবিত্র ঈদুল আজহা অর্থাৎ কোরবানির ঈদের সময় ঘনিয়ে আসছে। আর তাই কোরবানির পশুকে ঘিরে খামারি থেকে শুরু করে গ্রামের হাট-বাজারে ব্যস্ততা শুরু হয়েছে।

খামারিরা বলছেন, করোনার কারণে গত চারমাস ধরে গোখাদ্যের দাম অনেকটাই চড়া রয়েছে। সেই হিসেবে পশু পালনে গত চারমাসে খরচও বেড়েছে। সবমিলিয়ে পশুর দামও কোরবানিতে কিছুটা বাড়াতে হবে। আর ভালো দাম না পেলে লোকসান গুনতে হবে।

যদিও লোকসান দিয়ে পশু বিক্রি করবেন না বলে জানিয়েছেন বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার হস্তিসুন্ড এলাকার সরদার ফার্মের স্বত্ত্বাধিকারী গিয়াস উদ্দিন সরদার।

তিনি বলেন, প্রাকৃতিক নিয়মে পশু লালন-পালন এবং মোটাতাজা করেন তারা। এ কারণে তাদের গরুর স্বাস্থ্য যেমন ভালো, আয়ুকালও দীর্ঘস্থায়ী। লোকসান দিয়ে বিক্রি না করে পরের বছরের জন্য অপেক্ষায় রাখতে কোনো বেগ পেতে হবে না তাদের। তাতে করে পরিস্থিতি ঠিক হলে দামও ভালো পাবেন।

তরুণ খামারি সাদ্দাম হোসাইন জানান, কোরবানিতে পশু বেচাবিক্রি কেমন যাবে তা একমাস আগেই বোঝা যায়।খামারগুলোতে প্রতিবছর এমন সময়টাতে আনাগোনা থাকে। এবারে তা নেই। বলা যায়, করোনার প্রেক্ষাপটে সামনে কি হবে তা বলা মুশকিল। কারণ গত চার মাস খামারিসহ গরু-ছাগল পালন সংশ্লিষ্টদের দিন খারাপ কেটেছে।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের স্থানীয় কার্যালয়েরর হিসাব অনুযায়ী, বরিশাল বিভাগে গত বছরের চাহিদা অনুযায়ী কোরবানিযোগ্য পশুর লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিলো ৪ লাখ ৪৩ হাজার। যারমধ্যে ২ লাখ ৫৪ হাজার ৬০০ পশু স্থানীয়ভাবে সরবরাহ করা সম্ভভ হয়েছিলো। বাকি পশু বিভাগের বাইর থেকে বিশেষ করে কুষ্টিয়া, বাগেরহাট, ঝিনাইদহসহ অন্যান্য জেলা থেকে আনা হয়েছিলো।

তবে করোনার বর্তমান প্রেক্ষাপটে এবারে এ লক্ষ্যমাত্রার পরিমাণ প্রায় ১ লাখ কমে যাওয়ার শঙ্কা করা হচ্ছে। সেই হিসাবে এবারে প্রায় সাড়ে ৩ লাখ পশু কোরবানি হওয়ার কথা জানিয়েছেন বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ দপ্তরের উপ-পরিচালক ডা. কানাই লাল স্বর্ণকার।

তার দেয়া তথ্যানুযায়ী, বরিশালের ৬ জেলার ১৯ হাজার ৮০৬ জন খামারির কাছ থেকে কোরবানিযোগ্য ১ লাখ ৪ হাজার ৭৪১ টি পশুর হিসাবে পাওয়া গেছে এ পর্যন্ত। যে সংখ্যা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ১ লাখ ৩০ থেকে ৪০ হাজারে গিয়ে পৌঁছাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়া পারিবারিকভাবে লালন-পালন করা (গৃহস্থলি) আরও প্রায় ৫০ থেকে ৬০ হাজার পশু কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

প্রাণিসম্পদ দপ্তরের উপ-পরিচালক ডা. কানাই লাল স্বর্ণকার বলেন, লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী পশু কোরবানি হলে ২০ থেকে ২৫ শতাংশ পশু বিভাগের বাইর থেকে যোগান দিতে হবে।

তিনি বলেন, করোনার ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে এবারে পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটেছে। তাই কোরাবানির লক্ষ্যমাত্রা কমে গেছে। তবে এতে করে খামারিদের ভালো দাম পাওয়া নিয়ে শঙ্কা থাকলেও লোকসান হওয়ার কোনো কারণ নেই। কারণ স্থানীয় উৎপাদনের থেকে এখনও লক্ষ্যমাত্রা বেশি রয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
কপিরাইট © 2020 somoyerahoban.com একটি স্বপ্ন মিডিয়া সেন্টার প্রতিষ্ঠান।