1. admin@somoyerahoban.com : somoyerahoban :
বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:৩৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
কেশবপুর পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম আবারো মেয়র পদে আওয়ামী লীগের চুড়ান্ত প্রার্থী পৌরসভা নির্বাচনে নালিতাবাড়ীতে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী বাছাই শ্রীবরদী পৌরসভা নির্বাচনে তৃণমূলের ভোটে আ’লীগের প্রার্থী বাছাই: বিজয়ী সফিক শেরপুর পৌর নির্বাচন : আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী নির্বাচনে তৃণমূলের ভোটে শেরপুরে আনিস বিজয়ী কেন্দ্রীয় নির্দেশনা উপেক্ষা প্রতিবাদে আ’লীগের এক মনোনয়নপ্রত্যাশীর সংবাদ সম্মেলন তুরস্কে হ‌বে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য,বাংলা‌দে‌শে হ‌বে আতাতুর্কের ভাস্কর্য অঝোরে কাঁদলেন অপু বিশ্বাস! দ্বিতীয় ধাপে ৬১ পৌরসভার ভোট ১৬ জানুয়ারি শেরপুরে মায়ের বিরুদ্ধে শিশুকে হত্যার অভিযোগ কেশবপুরে ৫শত বছর বয়সী বনবিবি তেঁতুল গাছটি সংরক্ষণের দাবি

কেশবপুরে বিসিএস ক্যাডার (স্বাস্থ্য) কে ভুয়া ডাক্তার বলে সংবাদ করায় ডাক্তারদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশা

মীর আজিজ হাসান (যশোর)কেশবপুর প্রতিনিধি।
  • Update Time : শনিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৪৫ Time View

গত বৃহস্পতিবার কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিকে অভিযান পরিচালনা করেন যশোরের সিভিল সার্জন ডাঃ শেখ শাহীন। এসময়ে তিনি অতিরিক্ত ডিগ্রি ব্যবহারের জন্য দুইটি প্রাইভেট ক্লিনিকে ভিন্ন দুইজন চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র পুড়িয়ে দেন বলে জানা যায়। যারা দুইজন কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক হিসেবে কর্মরত আছেন। যাদের বিএমডিসি রেজিস্ট্রেশন নং এ৬৭৯৬৪ ও এ৭২১০৮। কিন্তু কিছু নিউজ পোর্টালে শিরোনাম করা হয় কেশবপুরে রাইজিং প্যাথলজির ভুয়া ডাক্তারদের প্যাড পুড়িয়ে দিয়েছেন সিভিল সার্জন। যে সংবাদটিতে বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডারদেরকে অসম্মান ও সমাজের কাছে ছোট করা হয়েছে। সংবাদের মধ্যে ভুয়া ডিগ্রির কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

শিরোনাম চকমপ্রদ করতে আমাদের সংবাদ কর্মীদের এমন লেখা কত টুকু দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিচ্ছে? একজন বিসিএস ডাক্তারকে আমরা ভুয়া ডাক্তার শিরোনাম করছি। এটি রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কোন চক্রান্ত নয়তো?

একটি কুচক্রী মহল সরকারের স্বাস্থ্য সেবাকে বাঁধাগ্রস্ত করতে এবং সমাজে বিসিএস ক্যাডার (স্বাস্থ্য) কে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এ মিথ্যা সংবাদ উপস্থাপন করেছেন বলে মনে করেন অনেক ডাক্তার।

সিভিল সার্জন শেখ শহীন জানান, তিনি কোন ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্র পোড়ান নি। তিনি বলেন আমি দেড়শত এর বেশি অভিযান পরিচালনা করেছি কিন্তু আমার দ্বারা এমন ঘটনা কখনও ঘটেনি। আমার সাথে থাকা কোন লোক বা ক্লিনিক মালিক পোড়াতে পারেন। সংবাদ শিরোনামের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান আমার সাথে কোন সাংবাদিকের কথা হয়নি। সংবাদ শিরোনামে ভুয়া ডাক্তার লেখা সঠিক হয়নি। কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিএসও আলমগীর হোসেন এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমি এ বিষয়ে কিছু জানিনা কিন্তু সংবাদ প্রতিবেদক জানান ব্যবস্থাপত্র পোড়ানোর কথা টিএসও স্যার জানান। শিরোনামে ভুয়া ডাক্তার লেখার বিষয়ে জানতে চাইলে জানান সংবাদের ভেতরে ডিগ্রির কথা উল্লেখ করেছি।

রাইজিং প্যাথলজির মালিক জানান ব্যবস্থাপত্র পোড়ানের ঘটনা সত্য। হিরা ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে 01767861576 নং এ কথা বলে জানা যায় সিভিল সার্জন স্যারের সাথে থাকা লোকটি ব্যবস্থাপত্র পোড়াতে বলেন। ডাক্তার দুইজন জানান তারা যে সব ডিগ্রি যে যে পার্ট পর্যন্ত শেষ করেছেন তারা সেই সব ডিগ্রির ঠিক সেই পার্ট পর্যন্ত ব্যবস্থাপত্রে ও ভিজিটিং কার্ডে উল্লেখ করেছেন। তারা জানান আমরা বিসিএস ক্যাডার কিন্তু আমাদের ব্যবস্থাপত্র পোড়ানোর মাধ্যমে ভুয়া ডাক্তার বানানো হল, এটা খুবই দুঃখজনক। অপরদিকে শুক্রবারে বিভিন্ন ক্লিনিকে ঘুরে দেখা যায় এখনো অতিরিক্ত ডিগ্রির ব্যবস্থাপত্র অনেকেই ব্যবহার করছেন। শুধুমাত্র কলমের কালি দিয়ে কেটে দিচ্ছেন।

যাদের ব্যবস্থাপত্র পোড়ানো হয়েছে তাদের বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে কেশবপুরে বেশ সুনামের সাথে তারা স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে চলেছেন। তাদের এমন বিষয় নিয়ে রোগীরাও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তাই সংবাদ সংগ্রহ করা, শিরোনাম তৈরী করা ও প্রকাশ করার সময় আমাদের আরো দায়িত্বশীল হতে হবে।।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
কপিরাইট © 2020 somoyerahoban.com একটি স্বপ্ন মিডিয়া সেন্টার প্রতিষ্ঠান।