1. admin@somoyerahoban.com : somoyerahoban :
সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
কেশবপুরে নব-নির্বাচিত মেয়র রফিকুল ইসলামকে ফুলের শুভেচ্ছা প্রদান কেশবপুরে ঘাঘা যুব সমাজের উদ্যোগে বার্ষিক তাফসীরুল কুরআন মাহফিল অনুষ্ঠিত কেশবপুরে ইয়াবা ও ফেনসিডিলসহ দুই চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী আটক বন্যহাতি ও দারিদ্রতার সাথে লড়াই করে টিকে আছে বালিজুরী গ্রামের খ্রিষ্ঠ সম্প্রদায়ের অর্ধ শতাধিক পরিবার নালিতাবাড়ীতে পুলিশের ৭ মার্চ পালন ও আনন্দ উদযাপন শেরপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় ৭ মার্চ পালিত। অভিযুক্ত স্বামী স্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা দিল পুলিশ। ঝিনাইগাতী বালু দস্যুদের থাবায় ক্ষতবিক্ষত গারো পাহাড় কেশবপুরে এক ডাক্তারের বাড়ীর কাজের মহিলার অবৈধ গর্ভপাত এলাকায় চাঞ্চল্য কেশবপুরে হ্যাট্টিক জয়ী কাউন্সিলর বিপুল ওয়ার্ডবাসীর ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হলেন

কেশবপুরে রাস্তার মাঝে গাছ ও সীমানা প্রাচীর থাকায় চলাচলের ঝুঁকিতে শতাধিক পরিবার

মীর আজিজ হাসান (যশোর)কেশবপুর প্রতিনিধি।
  • Update Time : শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৪১ Time View

কেশবপুরে জাহানপুর গ্রামে রাস্তার মাঝে গাছ ও সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করায় দু-পাড়ার প্রায় শতাধিক পরিবার দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে অবরুদ্ধ জীবনযাপণ করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, উপজেলার জাহানপুর গ্রামের সরদারপাড়া ও কারিকর পাড়ায় দেড়শ পরিবার বসবাস করেন।  দুই পাড়ার লোকজন পূর্ব থেকেই আব্দুল খালেক সরদারের ছেলে আছাদুল ইসলাম ও মোমিন গংদের বাড়ির পাশের রাস্তা দিয়ে কেশবপুর ভায়া ত্রিমোহিনী রাস্তায় উঠে বাজার সওদা করে থাকেন। ১৫ বছর আগে আছাদুল ইসলাম জনগণের বাধা না মেনে রাস্তা দখল করে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করেন। এ বিরোধ নিরসন না হওয়ায় আব্দুল মোমিন গং রাস্তার মাঝ দিয়ে মেহগনি গাছ রোপণ করেন। ফলে সরদারপাড়া ও করিকর পাড়ায় দেড়-শ পরিবার অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে।

সরদার পাড়ার মোসলেম সরদার জানান, আছাদুল ইসলাম ও মোমিন গংরা রাস্তা বন্ধ করে রাখায় সরদার পাড়া ও করিকর পাড়ার লোকজন তার উঠান দিয়ে চলাচল করেন। ওই দুই পাড়ার মুমূর্ষু রোগীদের হাসপাতালে নিতে ও মাঠের ফসল বাড়ি আনতে তাদের সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এসব সমস্যার কারণে তিনি বাদx হয়ে থানা পুলিশ ও এলাকার চেয়ারম্যানের কাছে অভিযোগ দিয়েও বিষয়টি নিরসন করতে পারেননি।

আব্দুল মোমিন সরদার বলেন, আছাদুল ইসলাম আমাদের জমি দখল করে প্রাচীর নির্ম্মান করেছে। প্রাচীর ভেঙে নিলে আমরা গাছ কেটে দেব। আছাদুল ইসলাম বলেন, আমার জায়গায় প্রাচীর করা আছে। তাছাড়া ওই দু-পাড়ার লোকজন মোসলেম সরদারের উঠান দিয়ে বিকল্প রাস্তায় চলাচল করে থাকেন। কেউ অবরুদ্ধ নয়।

এ ব্যাপারে সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সামছুদ্দীন দফাদার বলেন, বিষয়টি নিরসনে গত ৯ জানুয়ারি উভয়পক্ষকে নিয়ে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে একটি সালিসি বৈঠক করা হয়। কিন্তু আছাদুল ইসলাম প্রাচীর ভাঙতে রাজি না হওয়ায় নিরসন সম্ভব হয়নি। আমি তাদের আদালতে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছি।

এব্যাপরে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. জসিম উদ্দীন সাংবাদিকদের জানান, জাহানপুর গ্রামের রাস্তা সংক্রান্ত অভিযোগের বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না।।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
কপিরাইট © 2020 somoyerahoban.com একটি স্বপ্ন মিডিয়া সেন্টার প্রতিষ্ঠান।