1. admin@somoyerahoban.com : somoyerahoban :
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
ঝিনাইগাতীতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপিতে প্রার্থী সংকট, আওয়ামী লীগে ছড়াছড়ি সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে ওয়ার্কার্স পার্টির মানববন্ধন ঝিনাইগাতীতে আর্থিক সংকটে মেয়ের চোখের চিকিৎসা করাতে পারছেন না দরিদ্র পিতা না‌লিতাবাড়ী‌তে কমরেড আবুল বাশার ব্রিগেডের উদ্যোগে পুজা মন্ডপে স্বাস্থ্য সামগ্রী বিতরণ ঝিনাইগাতীতে সংসদ সদস্য ফজলুল হকের পূজা মন্ডপ পরিদর্শন নালিতাবাড়ীতে গাছ কেটে র‌শি দি‌য়ে টান দিলে মাথায় পড়ে শ্রমিক নিহত জননেত্রী শেখ হাসিনার দেশ পরিচালনায় সুশাসনের ফল সকল ধর্মের মানুষ পাচ্ছে। মতিয়া চৌধুরী শ্রীবরদীতে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ সভা “যতক্ষণ শেখ হাসিনার হাতে দেশ, পথ হারাবে না বাংলাদেশ”ম‌তিয়া চৌধুরী নালিতাবাড়ীতে মা মেয়েকে সাতজনে মিলে গণধর্ষণ: গ্রেফতার ২

ঝিনাইগাতীতে ইউএনও’র নির্দেশ মানছেন না সরকারি জমি দখলকারি

ঝিনাইগাতী(শেরপুর)প্রতিনিধি
  • Update Time : সোমবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২১
  • ১৩৯ Time View

শেরপুরের ঝিনাইগাতী  ইউএনও’র নির্দেশ মানছেন না সরকারি জমি জবরদখলকারি আবু বকর সিদ্দিক উরফে তোতা মিয়া। তোতা মিয়া উপজেলা সদর ইউনিয়নের পাইকুড়া গ্রামের মৃত জাহাতুল্যা মন্ডলের ছেলে।

উপজেলা প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে, আবু বকর সিদ্দিক পাইকুড়া বাজারের সরকারি জমির উপর একটি পাকাঘর নির্মান করেন। এছাড়া ওই পাকা ঘরের পাশে বিল্লাল হোসেন,আজাহার আলী,নজরুল ইসলাম,রুস্তোম আলী,লাল মিয়া,সেকান্দর আলী,দুলু মিয়া,মাজহারুল মাস্টার,হাসমত আলী,ছাবর আলী,বাচ্চু মিয়াও আইয়ুব আলী মাস্টারও সরকারি জমি দখল করে অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মান করে।

সম্প্রতি পাইকুড়া বাজার উন্নয়নের জন্য সরকারি বরাদ্দ আসে। ফলে ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুবেল মাহমুদ ওইসব অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। উক্ত নির্দেশে ১২ জন অবৈধ স্থাপনা নির্মানকারি তাদের স্থাপনা স্বেচ্ছায় সরিয়ে নিলেও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদের নির্দেশ মানছেন না আবু বকর সিদ্দিক। গত ১৫ এপ্রিল ওই ১২ জন তাদের অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেন। কিন্ত আবু বকর সিদ্দিক এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার স্থাপনাটি সরিয়ে নেননি। নানান অজুহাত খুজছেন আবু বকর সিদ্দিক। জানা গেছে, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ পদোন্নতি ও বদলি জনিত কারণে রমজানের পর তিনি চলে চলে গেলে তার স্থাপনাটি হয়তো আর সরিয়ে নিতে হবে না। আবু বকর সিদ্দিক বলেন, পাশে আরো অবৈধ স্থাপনা আছে সেগুলো সরিয়ে নেয়ার পর আমার স্থাপনা সরিয়ে নেয়া হবে। তার দাবি ওই জমিটি তার নামের রেকর্ডীয় জমি। অবৈধদখলদার নয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ বলেন আজ আবু বকর সিদ্দিকে এক সপ্তাহের মধ্যে তার স্থাপনা সরিয়ে নিতে সময় দেয়া হয়েছে। তা সরিয়ে নেয়া না হলে আইনগত ব্যাবস্তা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
কপিরাইট © 2020 somoyerahoban.com একটি স্বপ্ন মিডিয়া সেন্টার প্রতিষ্ঠান।