1. admin@somoyerahoban.com : somoyerahoban :
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৫১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
ঝিনাইগাতীতে সুকুমার হলেন শুকুর আলী কেশবপুরে বজ্রপাত প্রতিরোধে তালের চারা রোপণ কর্মসূচীর উদ্বোধন করলেন এমপি শাহীন চাকলাদার নালিতাবাড়ীতে সনাকের উদ্যোগে ৪০০ তালবীজ রোপন ঝিনাইগাতীতে ইউনিয়ন পরিষদের রাস্তা বন্ধ করে বিল্ডং নির্মানের অভিযোগের তদন্ত শুরু কেশবপুরে যুব সমাজের উদ্যোগে বজ্রপাত প্রতিরোধে তালের বীজ রোপন শেরপুরে মুজিব শতবর্ষ জেলা দাবা লীগ উদ্বোধন : প্রথমদিন দাবা ক্লাবের পূর্ণ পয়েন্ট লাভ। নালিতাবাড়ীতে মায়ের সাথে অভিমান করে শিশুর আত্মহত্যা শ্রীবরদীতে মাদকবিরোধী অভিযানে হেরোইনসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার সোমেশ্বরী নদী থেকে অবৈধভাবে বালু লুটপাট চলছেই,পাড় ভেঙ্গে হুম‌কি‌তে বসতবাড়ি নালিতাবাড়ীতে আখ চাষে লাভ,বাড়ছে আবাদ

নালিতাবাড়ীতে বিধবা নারীর জমি বেদখলের অভিযোগ বিরঙ্গনা সন্তানের বিরোদ্ধে।

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২ আগস্ট, ২০২১
  • ৭৭ Time View

নালিতাবাড়ী প্রতিনিধি
শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে প্রায় অর্ধশত বছরধরে ভোগ দখলীয় এক বিধবা নারীর জমি বেদখল ও মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে বিরঙ্গনা স্বীকৃতি পাওয়া নারীর সন্তানের বিরোদ্ধে। এ ব্যাপারে শেরপুরের আদালতে ওই বিধবা নারী মামলা দায়ের করেছেন।
জমির মালিক,এলাকাবাসী ও মামলা সূত্রে জানাযায়,উপজেলার কাকরকান্দি ইউনিয়নের কাকরকান্দি মৌজায় ২ একর ৯ শতাংশ জমির মালিক ছিলেন কোকিলা দিও। ভারত পাকিস্তান যুদ্ধের সময় কোকিলা দিও ভারতে চলে যায়। এরপর ওই জমি অর্পিত সম্পত্তি হিসেবে রিফোজি কাঞ্চন শেখকে বরাদ্ধ দেয় সরকার। কাঞ্চন শেখ ওই জমি ১৯৭৪ সালে গ্রাম্য দলিলে আবদুল জব্বারের কাছে বিক্রি করে দেন। পরবর্তীতে আবদুল জব্বার দুই ধাপে হাতেম আলীর কাছে বিক্রি করেন। পরে হাতেম আলী উপজেলা ভুমি অফিসে খোজ নিয়ে দেখেন ওই জমির খাজনা পরিশোধ না করায় নিলামে উঠে আছে। ১৯৮৭ সালে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে উপজেলা সার্টিফিকেট আদালত উক্ত জমি প্রকাশ্যে নিলামে বিক্রির ব্যবস্থা করে। নিলামে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে জমির মালিক হন সোহাগপুর গ্রামের হাতেম আলী(বর্তমানে মৃত)ও তার স্ত্রী রাবিয়া খাতুন। আদালতের প্রসেস সার্ভার সরেজমিনে হাতেম আলী ও তার স্ত্রীকে জমির দখল বুঝিয়ে দেন। এরপর থেকে তারা জমির খাজনা পরিশোধ করে জমি ভোগদখল করে আসছে। এদিকে হাতেম আলীর মৃত্যুর পর বিআরএস রেকর্ড ভুলবসত ২ একর জমি হাতেম আলীর নামে উঠেনি। পরবর্তীতে হাতেম আলীর স্ত্রী ও ওয়ারিশানগন বিআরএস রেকর্ড সংশোধনের জন্য চলতি বছরের ২৪ জানুয়ারীতে শেরপুরের আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এখন ওই জমির দাবী করেন সোহাগপুর গণহত্যা ও নির্যাতিত নারী আছিরন বেওয়ার সন্তান মগরব আলী। এ ছাড়াও ওই বিধবা নারী রাবিয়া খাতুন সহ তার সন্তানদের বিরোদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে আসছেন বলে জানান। বিধবা ওই নারী এক বছর ধরে ওই জমি আবাদ করতে পারছে না।
মৃত হাতেম আলীর সন্তান মোঃ আলতাফ হোসেন জানান, আদালতে বিচারাধিন মামলায় মগরব আলী প্রতিদ্বন্দীতা না করে তার মা সোহাগপুরের বিরঙ্গনা খেতাব প্রাপ্ত আছিরন বেওয়ার খেতাবের অপব্যবহার করে বে-আইনি ভাবে জোরপূর্বক জমি বেদখল এর চেষ্টা, মিথ্যা মামলা ও হয়রানি করে আসছে।
সাবেক ইউপি সদস্য মো.সিদ্দিকুর রহমান বলেন,আমরা জনেমর পর থেকেই দেখে আসছি এই জমিতে হাতেম আলীর সন্তানগণ আবাদ করে আসছে। মগরবদের ওই জমিতে কখনো দেখি নাই।
শহীদ পরিবারের সন্তান জালাল উদ্দিন বলেন, আমার জানামতে ৪৭ বছর ধরে ওই জমি হাতেম আলী আবাদ করতাছে। মগরব আলীর মা আছিরন বেওয়া বিরঙ্গনার স্বীকৃতি পাওয়ার পর থাইকা তা মায়ের দোহাই দিয়া চলতাছে মগরব।
বিরঙ্গনা আছিরন বেওয়ার সন্তান মগরব আলীর কাছে জমির কাগজ পত্র কী আছে জানতে চাইলে দেখা করবো বলে তিনদিন অতিবাহিত করেন। এরপর থেকে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
কপিরাইট © 2020 somoyerahoban.com একটি স্বপ্ন মিডিয়া সেন্টার প্রতিষ্ঠান।